গৃহস্থের ঘরে পালিত দেশি মোরগ

দেশি মোরগ

গৃহস্থের ঘরে পালিত দেশি মোরগ

গ্রামে গেছেন আর মুরগির কক কক শব্দে ভোর বেলায় ঘুম ভাঙেনি—এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। মসজিদে ফজরের আযানের সাথে সাথে শুরু হয় মুরগির ডাক। হ্যাঁ, দেশি মুরগির কথা বলছি। গ্রামের মানুষের ফজর নামাজের জন্য অ্যালার্মের প্রয়োজন হয় না। মুরগির কক কক শব্দই তাদের অ্যালার্ম।

শহুরে লোকেরা মুরগির কক কক শব্দে যতই বিরক্ত হন না কেন, খাবারের টেবিলে দেশি মুরগির গোশত পেলে গপাগপ এক্সট্রা দু-চার প্লেট এমনিতেই মেরে দেন।

ব্রয়লার মুরগি খেতে খেতে অরুচি ধরে গেছে। মাঝে এসে যোগ হয়েছে পাকিস্তানি মুরগি। তাও সেটা অনেকে খায় দেশি মুরগি পায় না বলে। দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানো আরকি।

মুরগির যত জাত এবং প্রকার আছে—এর মধ্যে যে দেশি মুরগি সবার সেরা এ কথা কাউকে বুঝিয়ে বলার দরকার নেই। ঢাকার মানুষের কাছে দেশি মুরগি মোটামুটি একটা আরাধ্য ব্যাপার। এই সুস্বাদু আরাধ্য খাবারটি আপনাদের কাছে নিয়ে এসেছে তিজারাহ শপ।

মুরগিগুলোর সোর্সিং করা হয়েছে নরসিংদীর এক গ্রাম থেকে। গৃহস্থের ঘরে পালিত মুরগিগুলো তে না আছে রাসায়নিক খাবার, আর না কোনো ভেজাল। গৃহস্থের ঘরের খাবার খেয়ে খেয়ে বড় হয়েছে।

ফ্ল্যাট বাসায় জ্যান্ত মুরগি পাঠালে কক কক শব্দে বিরক্ত হবেন বলে আমরা সেটা পাঠাচ্ছি রেডি টু কুক অবস্থায়। অর্ডার করুন, ডেলিভারি নিন আর প্যাকেট খুলে রান্নায় বসিয়ে দিন। সারাজীবন মুরগির কক কক শব্দে যত বিরক্তি এসেছে, খাবার টেবিলে তার সবটার প্রতিশোধ নিন আয়েশ করে, শক্ত হাড় চিবিয়ে-চিবিয়ে। খাওয়া শেষে ভুঁড়ির দিকে তাকিয়ে একবার আলহামদুলিল্লাহ বলে ঢেঁকুর তুলুন। তারপর ছোট্ট করে একটা রিভিউ ছেড়ে দিন আমাদের পেইজে।

 

লাঞ্চ হোক গৃহস্থের ঘরে পালা দেশি মুরগির গোশত দিয়ে। ফিরে যান সেই ছেলেবেলায়।

রাতে অর্ডার কনফার্ম করলে সকাল দশটার মধ্যেই আমাদের ডেলিভারিম্যান আপনার দরজায় কড়া নাড়বে ইন শা আল্লাহ

* স্টক সীমিত

** শুধু ঢাকা সিটিতে

** ডেলিভারি চার্জ প্রযোজ্য

 

LEAVE A COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *